ব্রেকিং নিউজ :
দীর্ঘসূত্রিতা, অপচয় ও দুর্নীতির সুযোগ সৃষ্টি করে : প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সাথে কুয়েতের রাষ্ট্রদূতের বিদায়ী সাক্ষাৎ দেশকে সমৃদ্ধির পথে নিয়ে যেতে তৈরি হও : নতুন প্রজন্মের প্রতি প্রধানমন্ত্রী বন্যার্ত মানুষের চিকিৎসা সেবায় মাঠে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ সময়োচিত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারলে প্রতিষ্ঠান দ্রুত এগিয়ে যাবে : বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী দক্ষতা অর্জনে উন্নত প্রশিক্ষণের বিকল্প নাই : বিএসএমএমইউ উপাচার্য সেবা নিতে এসে একজনও যেন বিমুখ না হন : শিক্ষামন্ত্রী টিপু হত্যা : শুটার মুসার দায় স্বীকার এসএমই খাতকে শক্তিশালী করতে সরকার সহযোগিতা দিয়ে যাবে : প্রধানমন্ত্রী প্রথম ৮ ঘন্টায় ১৫ হাজার ২০০ যানবাহন পারাপার
  • আপডেট টাইম : 20/06/2022 08:56 PM
  • 4 বার পঠিত

দেশের ১৮ থেকে ৫০ বছর বয়সী যোগ্য বিবেচিত লোকজন তাদের ৬০ বছর বয়স পূর্ণ হওয়ার পর সরকার কর্তৃক প্রবর্তিত সর্বজনীন পেনশন প্রকল্পের সুবিধা পাবেন।
মন্ত্রিসভা আজ ‘সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থাপনা আইন, ২০২২’এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন (আইন মন্ত্রকের যাচাই-বাছাইয়ের পরে) দেওয়ায় দেশের প্রতিটি ব্যক্তি, এই প্রকল্পের সুবিধা লাভের ভিত্তিতে, ৬০ বছর বয়সী হওয়ার পরে পেনশন পেতে শুরু করবে।
বাংলাদেশ সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠক সম্পর্কে ব্রিফিংয়ে আজ মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।
এরআগে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে (পিএমও) অনুষ্ঠিত বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ১৮ থেকে ৫০ বছর বয়সী ব্যক্তিদের পাশাপাশি, বিশেষ ব্যবস্থার অধীনে বয়স্ক ব্যক্তিরাও এই প্রকল্পে অংশগ্রহণের মাধ্যমে এই পেনশনের সুবিধা পেতে পারেন।
তিনি বলেন, পেনশন স্কিমের আওতায় আসার জন্য, একজনকে কমপক্ষে ১০ বছরের জন্য একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ প্রিমিয়াম দিতে হবে। ৬০ বছর পূর্ণ করার পরে সে ব্যক্তি মৃত্যু পর্যন্ত এই সুবিধা পাবেন।
এখন আইন মন্ত্রণালয়ের লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ থেকে যাচাই-বাছাই শেষে আইনটি জাতীয় সংসদে পাঠানো হবে বলে জানান আনোয়ারুল ইসলাম।
তিনি বলেন, ১৮ থেকে ৫০ বছর বয়সী সকল বাংলাদেশী নাগরিক এই পেনশন স্কিমে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। আর এতে অংশ নিতে পারবেন প্রবাসী বাংলাদেশীরাও। তারা (প্রবাসী) নিবন্ধিত হতে এবং প্রিমিয়াম প্রদান করতে পারবেন।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, জনগণের বেকারত্ব, ব্যাধি, পঙ্গুত্ব, বার্ধক্য কারণে অভাবগ্রস্ততা এবং দেশের মানুষের গড় আয়ু বৃদ্ধির ফলে ক্রমবর্ধমান বয়স্ক জনগোষ্ঠীকে একটি পেনশন এবং সুসংগঠিত সামাজিক নিরাপত্তা বলয়ে আনার জন্য অর্থ বিভাগ থেকে আইন উপস্থাপন করা হয়েছে।
আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, যদি কোনো বয়স্ক ব্যক্তি ৭৫ বছর বয়সের আগে মারা যান তবে নমিনি বাকি সময়ের জন্য পেনশন পাবেন, তিনি উদাহরণ তুলে ধরে বলেন, ৬২ বছর বয়সে কেউ মারা গেলে তার নমিনি ১৩ বছর পেনশন পাবেন।
তিনি আরো জানান, এছাড়া প্রিমিয়াম পরিশোধ করতে গিয়ে কেউ মারা গেলেও তার বয়স ৬০ বছর না হলে সেই ব্যক্তির মনোনীত ব্যক্তি এককালীন সুবিধাসহ জমাকৃত অর্থ পাবেন।
উদাহরণস্বরূপ, একজন ব্যক্তির বয়স ২০ বছর এবং তিনি এই পেনশনে অবদান রাখছেন। যদি তিনি ৩০ বছর বয়সে মারা যান তবে তার মনোনীত ব্যক্তি জমাকৃত অর্থ এবং এককালীন সুবিধা পাবেন।
তিনি বলেন, তবে প্রিমিয়ামের পরিমাণ প্রস্তাবিত আইনের অধীনে একটি নিয়ম দ্বারা নির্ধারিত হবে।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, প্রস্তাবিত আইন অনুযায়ী, একজন চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে একটি পাঁচ সদস্যের জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ থাকবে এবং অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে ১৫ সদস্যের একটি গভর্নিং বডি থাকবে।
সংবাদপত্র ও সংবাদ সংস্থার মান উন্নয়ন ও মান বজায় রাখার পাশাপাশি অপসাংবাদিকতা দূর করার লক্ষ্যে ‘প্রেস কাউন্সিল (সংশোধন) আইন ২০২২’ এর খসড়া নীতিগতভাবে অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, খসড়া আইনে রাষ্ট্রের নিরাপত্তা, জনশৃঙ্খলা ও নৈতিকতার ক্ষতি বা ভঙ্গের জন্য আর্থিক জরিমানা আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছিল, কিন্তু মন্ত্রিসভা তা নাকচ করে দিয়েছে।
তিনি বলেন, ‘মন্ত্রিসভা প্রেস কাউন্সিলের বিবেচনার ওপর এটি (জরিমানার পরিমাণ) ছেড়ে দিয়েছে। কাউন্সিল স্বত:প্রণোদিত হয়ে অপরাধ বিবেচনায় নিতে পারে।
তিনি বলেন, খসড়া আইনটি এখনো চূড়ান্ত অনুমোদন না পাওয়ায় মন্ত্রিসভায় ফিরে আসবে। প্রস্তাবিত আইনটি ১৯৭৪ সালের বিদ্যমান আইনে সংশোধন আনার জন্য প্রণয়ন করা হয়েছে।
এক প্রশ্নের জবাবে আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, সংবাদ সংস্থা বলতে সকল প্রিন্ট ও ডিজিটাল মিডিয়া বুঝাবে।
তিনি বলেন, খসড়া আইন অনুযায়ী বর্তমান ১৪ সদস্যের প্রেস কাউন্সিলের পরিবর্তে ১৭ সদস্যের প্রেস কাউন্সিল থাকবে।
অধিকন্তু, মন্ত্রিসভা অন্ধ, দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বা অন্যথায় মুদ্রণ বুঝতে অক্ষম ব্যক্তিদের জন্য প্রকাশিত রচনাগুলিতে অ্যাক্সেসের সুবিধার্থে মারাকেশ চুক্তি স্বাক্ষর ও অনুমোদনের জন্য বাংলাদেশের একটি প্রস্তাব অনুমোদন করেছে।
অন্ধ বা দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য সুবিধাজনক অত্যন্ত অল্প সংখ্যক বই এমন ফর্ম্যাটে প্রকাশিত হয় যা ‘বুক ফেমিন’ হিসেবে পরিচিত। এই সমস্যাটি মোকাবেলা করার জন্য মারাকেশ চুক্তি ২০১৩ সালে মরক্কোর মারাকেশ নগরীতে ওয়ার্ল্ড ইন্টেলেকচুয়াল প্রপার্টি অর্গানাইজেশন (ডব্লিউআইপিও) কর্তৃক গৃহীত হয়েছিল।
অধিকন্তু, মন্ত্রিসভা ২০১৫ সালে গৃহীত সার্বভৌম সম্পদ তহবিল গঠনের বিষয়ে সভার আগের সিদ্ধান্ত বাতিল করেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...